'আমার বাড়ি' কবিতায় বন্ধুকে আপ্যায়নের জন্য কী কী আয়োজন ও খাবারের কথা উল্লেখ আছে?

পল্লীকবি জসিম উদ্‌দীনের লেখা 'আমার বাড়ি' কবিতায় কবি তার বন্ধুকে আপ্যায়নের জন্য যেসব আয়োজন ও খবারের কথা উল্লেখ করেছেন তা উল্লেখ করে কবিতায় বর্ণিত আপ্যায়নের সাথে বর্তমান সময়ের অতিথি আপ্যায়নের সাদৃশ্য/বৈসাদৃশ্য নিজের পারিবারিক অভিজ্ঞতার আলোকে কিভাবে লেখা যেতে পারে তার একটি উদাহারণ এখানে দেয়া হলো।

'আমার বাড়ি' কবিতায় বন্ধুকে আপ্যায়নের জন্য কী কী আয়োজন ও খাবারের কথা উল্লেখ আছে?

প্রশ্ন

আমার বাড়ি কবিতায় বন্ধুকে আপ্যায়নের জন্য কি কি আয়োজন ও খাবারের কথা উল্লেখ আছে? কবিতায় বর্ণিত আপ্যায়নের সাথে বর্তমান সময়ের অতিথি আপ্যায়নের সাদৃশ্য/বৈসাদৃশ্য নিজের পারিবারিক অভিজ্ঞতার আলোকে লিখ।


নমুনা উত্তর

বন্ধুকে আপ্যায়নের জন্য কি কি আয়োজন ও খাবারের কথা উল্লেখ আছে?

জসিম উদ্‌দীনের লেখা 'আমার বাড়ি' কবিতায় কবি তার শহুরে কোনো বন্ধুকে তার বাড়িতে নিমন্ত্রণ জানিয়েছেন। কবিতায় সে তার বন্ধুর আপ্যায়নের জন্য যে কয়েকটি খাবারের কথা উল্লেখ করছেন সেগুলো হলো,

  • শালি ধানের চিঁড়ে
  • বিন্নি ধানের খই
  • কবরি কলা এবং
  • গামছা-বাঁধা দই।
এই চারটি খাবারের কথা কবি ৪ টি পক্ততিতে খুব সুন্দরভাবে বলে দিয়েছেন। সেই লাইন ৪ টি হলো,

শালি ধানের চিঁড়ে দেব,
বিন্নি ধানের খই, 
বাড়ির গাছের কবরী কলা,
গামছা-বাঁধা দই।

 আপ্যায়নের জন্য এই চারটি খাবারের কথা উল্লেখ করার পাশাপাশি আরও কিছু আয়োজনের কথাও উল্লেখ করেছেন। এক্ষেত্রে কবিত তার আনন্দ, বিনোদন, বিশ্রাম, অবসর সময় কাটানোর জন্য গ্রামীণ পরিবেশে প্রকৃতির সবথেকে কাছাকাছি থেকে কাটানোর ব্যবস্থা করবেন বলে উল্লেখ করেছেন। 


কবিতায় বর্ণিত আপ্যায়নের সাথে বর্তমান সময়ের অতিথি আপ্যায়নের সাদৃশ্য/বৈসাদৃশ্য নিজের পারিবারিক অভিজ্ঞতার আলোকে বর্ণনা।

কবিতায় উল্লেখিত আপ্যায়নের সাথে আমাদের সমাজের অতিথি আপ্যায়নের বেশ কিছু সাদৃশ্য এবং বৈসাদৃশ্য রয়েছে। সময়ের পরিক্রমায় কিছু বৈসাদৃশ্য স্বাভাবিকই বটে। এসব সাদৃশ্য এবং বৈসাদৃশ্য নিচে তুলে ধরা হলো। 

আমাদের বাড়িতে কোনো অতিথি আসলে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করি তাকে ভালোভাবে আপ্যায়ন করতে। তবে কবির 'আমার বাড়ি' কবিতার মতো হয়ে উঠে না। বর্তমান সময়ে প্রাচীন গ্রামীণ পরিবেশ এক প্রকার নেই বললেই চলে। তাই কবি যেভাবে আপ্যায়ন করতে চেয়েছে, সেভাবে চাইলেও সম্ভব না বর্তমান সময়ে। বর্তমান শহুরে পরিবেশে কবির মতো আপ্যায়নের চেষ্টা কর প্রায় অসম্ভবই। কবির উল্লেখ করা শালি ধানের চিঁড়ে, বিন্নি ধানের খই এখন খুব একটা পাওয়াও যায় না। 

তাই এটুকু নির্দিধায় বলা যায় যে, কবির কবিতায় বর্ণিত আপ্যায়নের সাথে বর্তমান সময়ের অতিথি আপ্যায়নের সাদৃশ্য মনের চাওয়ার দিক থেকে থাকলেও বাহ্যিক দিক থেকে বৈসাদৃশ্য থাকাই স্বাভাবিক ব্যাপার। আমার নিজের পারিবারিক অভিজ্ঞতা হোক কিংবা অধিকাংশের, এটাই এখন সত্য।
Tags

Below Post Ad