ছবির কোয়ালিটি ঠিক রেখে ইমেজ সাইজ কমানো যায় কিভাবে?

বিভিন্ন কারণেই ইমেজ সাইজ পরিবর্তন করার প্রয়োজন হয়৷ এই পরিবর্তন অনেক ভাবেই করা যায়৷ মোবাইলে বিভিন্ন সফটওয়ারের সাহায্যে যেমন করা যায় তেমনি কম্পিউটার থেকে সরাসরি ইমেজ রিসাইজ দিয়েও করা যায়। তবে অনেক ক্ষেত্রেই ছবির কোয়ালিটি ঠিক থাকে না। ফলে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পাওয়া যায় না।

reduce image size

আজ কথা বলব অলনাইনে ইমেজ সাইজ পরিবর্তন করার সব থেকে সেরা উপায় নিয়ে৷ কোনো সফটওয়্যারের সাহায্য ছাড়া ইমেজ কোয়ালিটি ঠিক রেখে সাইজ কমানোর জন্য সবথেকে ভালো উপায় গুলোর একটা হচ্ছে TinyPNG.com

 

ইমেজ সাইজ কমানোর জন্য যেসব ধাপ অনুসরন করতে হবে তা হলো:

. যেকোনো একটি ব্রাউজার ওপেন কররে হবে শুরুতে

. অতঃপর TinyPNG.com প্রবেশ করতে হবে অথবা এখান থেকে সরাসরি ক্লিক করেও প্রবেশ করা যাবে

. সেখানে গেলে দেখতে পাওয়া যাবে Upload a File লেখা।

. সেখানে আপনার টার্গেট ফটোটি আপলোড দিতে হবে কিংবা কম্পিউটারে হলে ড্রাগ করে সেখানে ছেড়ে দিতে হবে।

. ব্যাস, কাজ শেষ! এখন Download করে নিলেই হবে।

. মজার ব্যাপার হলো এই, যদি আপনি আরও কমাতে চান সাইজ; তবে পেজটিকে রিফ্রেস দিয়ে এইমাত্র যে ফাইলটি ডাওনলোড করলেন সেটিকে আবার সেলেক্ট করে একই প্রক্রিয়া অবলম্বন করুন। যতক্ষণ ইচ্ছে, এমন করতে থাকুন। এভাবে 5 kb পর্যন্ত নিয়ে আসা সম্ভব। ছবি আগে থেকেই ছোট হলে আরও ছোট করা যায়। তবে অতিরিক্ত করে ফেললে ছবি বড় করে দেখতে গেলে ভাঙা ভাঙা দেখতে পাওয়াটা স্বাভাবিক।

 

এবার আসা যাক ইমেজ সাইজ কেনো কমানো প্রয়োজন সেই বিষয়ে।

 

ইমেজ সাইজ কমানো প্রয়োজন হতে পারে নিচের যেকোনো কারণে:

. ইমেজ এসইও এর একটি গুরুত্বপূর্ণ ধারপ ইমেজ সাইজ কমানো

. ওয়েব পেজের লোডিং স্পিড বেড়ে যায় বড় সাইজের ইমেজ যুক্ত করলে, সেক্ষেত্রে বিকল্প হচ্ছে সাইজ কমিয়ে নেয়া।

. ব্যক্তিগত সংগ্রহে থাকা ছবিগুলো স্টোরেজের অভাবে ডিভাইসে রাখা সম্ভবপর না হলেও এমবির ছবিকে ১০০কেবি করে রেখে দেয়াটা কার্যকরী! তবে ব্যক্তিগত ছবির ক্ষেত্রে এমন করার আগে অবশ্যই Google Drive, One Drive, Dropbox, Google Photos বা অন্য যেকোনো যায়গায় সংরক্ষন করে রাখা উচিত। কারণ বেশি সাইজ আর কম সাইজের ছবি কখনোই এক হতে পারে না।

৪. ছবি সেন্ড করার ক্ষেত্রে। উদাহারণ হিসেবে বলা যায় জিমেইল ব্যবহার করে ২৫ মেগা বাইটের বেশি সাইজের কোনো ফাইল সেন্ড করা যায় না, সেক্ষেত্রে সাইজ কমানো থাকলে খুব সহজেই সেন্ড করা যাবে। অন্যথায় গুগল ড্রাইভ বা অন্য কোথাও আপলোড দিয়ে লিংক শেয়ার করতে হবে যার থেকে এই পদ্ধতিতে সাইজ কমিয়ে নেয়া অধীক কার্যকরী। 

এছাড়াও আরও বিভিন্ন কারণেই ছবির সাইজ কমানো প্রয়োজন হতে পারে। অনলাইনে ছবির সাইজ কোয়ালিটি ঠিক রেখে কমানোর জন্য এই পদ্ধতিটিই আমাদের কাছে সেরা মনে হয়েছে। 

 

আশা করি TinyPNG কিভাবে ব্যবহার করতে হয় তা জেনে গেছেন। ইমেজ এসইও এর মতোই এসইও এর অন্যান্য বিষয় নিয়ে জানতে ভিজিট করুন Different Marketing আমাদের দেয়া আপডেট সমূহ সবার আগে পেতে ফেসবুকে আমাদের ফলো করে See First দিয়ে রাখুন। আমাদের ফেসবুক ঠিকানা https://www.facebook.com/pathgriho71   আমাদের এন্ড্রয়েড এপ ডাওনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে।

Post a comment

0 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Below Post Ad