সাকিব আল হাসানের সামনে থাকা আরও ১২ রেকর্ড

সাকিব আল হাসান। নামটা বাংলাদেশের জান, বাংলাদেশের প্রাণের। বাংলাদেশ ক্রিকেটের এখন অব্দি সেরা ক্রিকেটার তিনি। তিন ৩ ক্রিকেট সংস্করণেরই  বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার, গত বিশ্বকাপের অন্যতম সেরা পারফর্মার, উইজডেনের শতাব্দির সেরা ক্রিকেটারদের তালিকায় থাকা একজন, টেস্ট ক্রিকেটে সবথেকে দ্রুততম ৩০০০ রানের সাথে ১৫০ উইকেট নেয়া অলরাউন্ডার কিংবা একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দ্রুততম ৬০০০ রানের সাথে ২৫০ উইকেট নেয়া অলরাউন্ডার। বাঁহাতি কোনো বোলার হিসেবে সব ধরনের টি২০ ক্রিকেটে প্রথমবারের মতো ৩০০ উইকেট নেয়া বোলারও যেমন তিনই, তেমনি টি২০ তে ৪০০০ রানের সাথে ৩০০ উইকেট নেয়া ২য় অলরাউন্ডার।
 
সাকিব আল হাসানের সামনে থাকা আরও ১২ রেকর্ড
গত বিশ্বকাপের এক ম্যাচে সাকিব আল হাসান 
এভাবে বলতে থাকলে কোথায় গিয়ে শেষ হবে তা আন্দাজ করাও দুষ্কর। কারণ তার নামই তো রেকর্ড আল হাসান। রেকর্ড ভাঙ্গা গড়ার খেলা সাকিব আল হাসান নিয়মিতই খেলেন, নিজের রেকর্ড নিজে ভাঙ্গেন, ভেঙ্গে গড়েন সাবেক গ্রেটদের রেকর্ডও। তবে আজকে পুরোনো রেকর্ড নয়, সাকিবের সামনে থাকা ১০ টি সম্ভাব্য রেকর্ডের খোঁজ দেব ক্রিকেট সমর্থকদের, সব ঠিক থাকলে যেগুলো সাকিবের হবেই হবে।

১. ক্রিকেটের সবথেকে মর্যাদাবান সংস্করণ, টেস্ট ক্রিকেটে ৪ হাজার রানের সাথে ১৫০ উইকেট নেয়া অলরাউন্ডারের তালিকায় ৫ম ক্রিকেটার হিসেবে যুক্ত হয়েছেন বেন স্টোকস। ২১০ টেস্ট উইকেটের মালিক সাকিবের শুধু প্রয়োজন আর ১৩৮ রান, তাহলেই গ্যারি সোবার্স, কপিল দেব, ইয়ান বোথাম, জ্যাক ক্যালিস আর স্টোকসদের সাথে যুক্ত হবে সাকিব আল হাসানের নাম।
আগের ৫ জন:
  • গ্যারি সোবার্স
  • কপিল দেব
  • ইয়ান বোথাম
  • জ্যাক ক্যালিস
  • বেন স্টোকস

২. টি২০ ক্রিকেটে (আন্তর্জাতিক) ১৫০০ এর বেশি রান করেছেন সাকিব আল হাসান। আন্তর্জাতিক টি২০ তে বল হাতে আর মাত্র ৮ টি উইকেট নিলেই সাকিব গড়ে ফেলবেন নতুন এক রেকর্ড যা আগে কেউ পারেনি। একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে ১৫০০ বা তার অধীক রানের সাথে ১০০ আন্তর্জাতিক টি২০ উইকেটের মালিকানা হবে শুধু সাকিবের একার।

৩. টি২০ আইতে আর ৮ টি উইকেট নিলে আগের রেকর্ডের সাথে আরও একটি রেকর্ড হয়ে যাবে সাকিব আল হাসানের। লাসিথ মালিঙ্গার পর ২য় বোলার হিসেবে টি২০ তে ১০০ টি আন্তর্জাতিক উইকেট নেয়ার সুযোগ আছে সাকিবের। যদিও ৯২ উইকেটের মালিক সাকিবের পেছন থেকে ৮৯ উইকেট নিয়ে চোখ রাঙানিটা রশিদ খান ভালোভাবেই দিচ্ছে।
ক্রমিক
বোলার
উইকেট
০১
লাসিথ মালিঙ্গা
১০৭
০২
শহীদ আফ্রিদি
৯৮
০৩
সাকিব আল হাসান
৯২
০৪
রশিদ খান
৮৯

৪. ওয়ান-ডে-ইন্টারন্যাশনালে আর ৬৭৭ রানের সাথে ৪০ টি উইকেট নিলেই সাকিব আল হাসান হয়ে যাবেন ৭ হাজার রানের সাথে ৩০০ উইকেটধারী ৩য় অলরাউন্ডার। তার আগেই এখানে নাম লিখিয়েছে আফ্রিদি আর জায়সুরিয়া। বল হাতে ৪০ উইকেট পেতে সময়ও লাগবে খানিকটা, তবুও সাকিবের আশে পাশে এই মূহুর্তে এই রেকর্ডে ভাগ বসানোর মতো তেমন কেউই নেই।

৫. ওডিআই ক্রিকেটে বল হাতে ৪০ উইকেট নিয়ে নিলেই ওডিআইতে ৩০০ বা তার অধীক উইকেট নেয়া বোলারের তালিকায় ১৪ তম নামটা হবে সাকিব আল হাসান। সমসাময়িক কেউ আর এই রেকর্ডে ভাগ বসানোর মতো অবস্থাতেই এই মুহূর্তে নেই। মাশরাফি বিন মুর্তজার প্রয়োজন ছিলো ৩০ উইকেট।

ক্রমিক
বোলার
উইকেট
০১
মুত্তিয়া মুরালিধরন
৫৩৪
০২
ওয়াসিম আকরাম
৫০২
০৩
ওয়াকার ইউনিস
৪১৬
০৪
চামিন্দা ভাস
৪০০
০৫
আফ্রিদি
৩৯৫
০৬
শন পোলক
৩৯৩
০৭
ম্যাকগ্রাহ
৩৮১
০৮
ব্রেট লি
৩৮০
০৯
লাসিথ মালিঙ্গা
৩৩৮
১০
অনীল কুম্বলে
৩৩৭
১১
সনাৎ জায়সুরিয়া
৩২৩
১২
শ্রীনাথ
৩১৫
১৩
ডেনিয়েল ভেটোরি
৩০৫
২০
মাশরাফি বিন মুর্জতা
২৭০
২৫
সাকিব আল হাসান
২৬০

৬. মিরপুরের শের-এ-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ওয়ানডেতে বল হাতে আর মাত্র ২ উইকেট পেলে ওয়াকার ইউনিসের রেকর্ড আর ১০ উইকেট পেলে ওয়াসিম আকরামের রেকর্ড টপকে নির্দিষ্ট একটি ভেন্যুতে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী হবেন সাকিব আল হাসান।

৭. ওডিআই ক্রিকেটে ৭০০০ রান পূর্ণ হতে সাকিবের দরকার আর ৬৭৭ রান। এই ৬৭৭ রান যদি সাকিব ২০ ইনিংসে করেন তাহলে দ্রুততম ৭০০০ রান ক্লাবে ঢুকার ক্ষেত্রে ছাড়িয়ে যাবেন কুমার সাঙ্গাকারা, মোহাম্মদ আজহারউদ্দিনদের। তামিমের সাথে ১৮ নাম্বার পজিশনে থাকতে হলে রানটা করতে হবে ১০ ইনিংসে।

৮. ওডিআইতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আর মাত্র ২ টি শতক করতে পারলেই একক কোনো দলের বিপক্ষে সর্বোচ্চ শতক করা খেলোয়ারদের তালিকার সেরা ২০ এ ঢুকে যাবেন সাকিব আল হাসান। সর্বোচ্চ ৯ সেঞ্চুরি ভিরাট আর টেন্ডুলকারের। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সাকিবের শতক ৩টি আর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সংখ্যাটা ২।

৯. শের-এ-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সাদা পোশাকে সাকিব আর ৩৩৮ রান করলে নির্দিষ্ট এক ভেন্যুতে সর্বোচ্চ টেস্ট রান করার তালিকায় সেরা ১০ এ প্রবেশ করবেন সাকিব আল হাসান। সেরা ৫ এ যেতে দরকার ৭০৩ রান।

১০. টেস্ট ক্রিকেটে আরও ৪০ উইকেট নিতে ১৫ ম্যাচ সময় নিলে সাকিব টপকে যাবেন জহির খান, মর্নে মরকেলের মতো প্লেয়ারদেরকে, থাকবেন স্টুয়ার্ড ব্রডের সাথে। কপিল দেবকে ধরতে কাজটা সারতে হবে ৯ ম্যাচেই। তার স্থান ২৯ নম্বরে।

১১. মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে ওডিআইতে আর ৯ উইকেট নেয়ার সাথে রানের দিক থেকে তামিমকে টপকাতে পারলেই হয়ে যাবেন একই ভেন্যুতে ওডিআইতে এক সাথে সর্বোচ্চ রান আর উইকেটের মালিক। এই মুহূর্তে মিরপুরে তামিম ইকবালের রান ২৬১৯ আর সাকিব আল হাসানের ২৪৭২।
 
রেকর্ড আল হাসানের সামনে থাকা আরও ১২ রেকর্ড
উইকেট শিকারের পর সাকিব 
১২. কোনো নির্দিষ্ট গ্রাউন্ডে সর্বোচ্চ টি২০ উইকেট শিকারী হওয়ার সম্ভাবনাও উঁকি দিচ্ছে সাকিব আল হাসানকে। মিরপুরে ২৫ উইকেট নিয়ে সাকিব ২য় যেখানে একই মাঠে ২৭ উইকেট নিয়ে আল আমিন হোসাইন প্রথম আর ২০ উইকেট নিয়ে মুস্তাফিজুর রহমান ৪র্থ। ৩ বাংলাদেশীর মাঝে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ২২ উইকেট নিয়ে ৩য় সোহেল তানভির আর দেরাদুনে ১৯ উইকেট নিয়ে ৫ম আফগান রশিদ খান।

রবিউল ইসলাম সাকিব
পাঠগৃহ The Reading Room

Post a comment

0 Comments